বাংলা সিরিয়ালে আদ্রিত রায় মিঠাই এর প্রিয় “উচ্ছেবাবু”

মিঠাই mithai adrit roy

জি বাংলায় এখন অন্যতম সেরা সিরিয়াল হল মিঠাই। প্রতিদিন রাত আটটার সময় হয়ে থাকে। সিরিয়ালের নিরিখে মিঠাই এখন এক নম্বর বাংলা সিরিয়াল টিআরপি সবথেকে বেশি। আর এই মিঠাই সিরিয়ালে সিদ্ধার্থ ও মিঠাইয়ের দুষ্টু মিষ্টি প্রেমের গল্প এখন বাংলার ঘরে ঘরে সবার মন জয় করেছে। সিরিয়ালের সিদ্ধার্থ অর্থাৎ ‘সিড’ এর ভূমিকায় অভিনয় করছেন আদ্রিত রায়। আদ্রিতের জন্ম কলকাতায়। আর পড়াশোনা করেছেন কলকাতাতেই। প্রথমে তিনি লা মাটিনা বয়েজ স্কুল থেকে পাশ করে টেকনো ইন্ডিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েশন কমপ্লিট করেন।

সিরিয়ালে যেমন তিনি একটু ইন্ট্রোভার্ট টাইপের। বাস্তবেও নিজেকে নিয়ে খুব বেশি সোশ্যাল মিডিয়ায় থাকতে পছন্দ করেন না। হ্যাঁ তবে বন্ধু বান্ধবদের সাথে জমিয়ে আড্ডা মারতে ভালোবাসেন। সিরিয়ালে ‘সিড’ অর্থাৎ মিঠাই এর “উচ্ছেবাবু” কোনরকম ওয়েলি খাবার খান না, কিন্তু বাস্তবে আদ্রিত বিরিয়ানি খেতে খুব পছন্দ করেন। তার বিশ্বাস পরিচালক বা প্রোডিউসারদের পিছনে না ঘুরে নিজের কাজটা যদি মন দিয়ে করা যায়, তাহলে কাজ পেতে কোন অসুবিধা হয় না। সিরিয়াল বা সিনেমা যাই হোক না কেন তিনি তার কাজটাকেই থেকেই সব থেকে বেশি গুরুত্ব দেন। স্কুল কলেজে পড়ার সময় থেকেই আদ্রিত এর থিয়েটার মিউজিক ইত্যাদির হবি ছিল। কিন্তু সিঙ্গার হিসেবেও খুব ভালো, রীতিমতো ওর একটা ব্যান্ড আছে “বেঙ্গল ক্লাব”। আদ্রিত স্টেজ শো  অনেক করেছেন। 

photo credits instagram

আদ্রিত রায় ( মিঠাই) ক্যারিয়ার 

ক্যারিয়ারের শুরুতে আদ্রিত কলকাতা থেকে গ্রাজুয়েশন কমপ্লিট করে চলে যান মুম্বাই। ওখানে গিয়ে তিনিএকটি অ্যাক্টিং স্কুলে ভর্তি হয়ে থিয়েটারে কাজ শুরু করেন। কিছুদিন মুম্বাই থাকার পর কলকাতায় ফিরে এসে তার সাথে পরিচয় হয় রাজ চক্রবর্তীর অ্যাসিস্ট্যান্ট জয়ত রায়ের সাথে। এই ঘটনা আদ্রিতের জীবনে এক নতুন মোড় নিয়ে আসে। এরপর রাজ চক্রবর্তীর এসিস্ট্যান্ট ডাইরেক্টর হিসেবে যোদ্ধা সিনেমায় তিনি কাজ করেন। কোন বড় অভিনেতার ছেলে অর্থাৎ স্টার কিড না হয়েও তিনি নিজের প্রতিভার সাহায্যে বেশ কিছু সিনেমাতে কাজ করার সুযোগ পান। আদ্রিতের করা বাংলা সিনেমা গুলি হল নুরজাহান, প্রেম আমার টু, পাসওয়ার্ড ও পরিণীতা। এগুলোর মধ্যে নুরজাহান সিনেমাটি বাংলাদেশ ভালো সফলতা লাভ করে আদ্রিত এর অভিনয় যথেষ্ট প্রশংসা পায়।

বর্তমানে অদ্রিত “মিঠাই” সিরিয়ালে প্রতি এপিসোড পিছু 30 থেকে 35 হাজার টাকা নিয়ে থাকেন। এছাড়াও সিনেমাতে পাঁচ থেকে আট লাখ টাকা নিয়ে থাকেন। বর্তমানে তার সম্পত্তির পরিমাণ আনুমানিক 50 লক্ষ টাকা। নিজস্ব দুটি গাড়ি রয়েছে একটি হুন্ডাই ভেন্যু ও আরেকটি টাটা নেক্সন। এছাড়াও সুজুকি জিক্সান  নামে একটি বাইক আছে অভিনেতার। অদ্রিত এর প্রিয় সিনেমা হল প্রলয়। আর প্রিয় অভিনেতা হল শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। অদ্রিতের প্রিয় অভিনেত্রী হলেন শুভশ্রী। 

  দিতিপ্রিয়া রায় ও বিশ্বাবসুর সম্পর্ক মুখ খুললেন রানিমা, দিতিপ্রিয়া বোল্ড লুক

বর্তমানে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে বিভিন্ন জায়গায় অদ্রিতের গার্লফ্রেন্ড ও বিয়ে নিয়ে নানা কথা শোনা যাচ্ছে। টলিপাড়াতেও কান পাতলে শোনা যাচ্ছে নভেম্বরে নাকি বিয়ে হবে। এ ব্যাপারে আদ্রিতকে জিজ্ঞেস করলে, তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন ওসব কিছু হচ্ছে না। অর্থাৎ তিনি সিঙ্গেলই আছেন।  

আশাহত না হয়ে কাজ করতে চান শ্রাবন্তী

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page